খবর সেন্সর করা হচ্ছে, বিজয়ী না হওয়া পর্যন্ত অবরোধ চলবে: খালেদা

khaleda2দেশের টেলিভিশন স্টেশনের মালিক ও প্রতিনিধিদের ডেকে সরকারের মন্ত্রীরা যেসব বক্তব্য দিয়েছেন তাতে জনগণ প্রকৃত ঘটনা জানতে পারবে না বলে উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন খালেদা জিয়া।

বৃহস্পতিবার রাতে গুলশানের কার্যালয়ে বিএনপি চেয়ারপারসনের সঙ্গে সাক্ষাতের পর তার উপদেষ্টা শওকত মাহমুদ সাংবাদিকদের বলেন, ‘‘মিডিয়ার ওপর নতুন করে সেন্সরশিপ আরোপ করা হচ্ছে, যাতে জনগণ প্রকৃত ঘটনা জানতে না পারে। আজকে টেলিভিশন চ্যানেল মালিক ও প্রতিনিধিদের ডেকে মন্ত্রীরা বৈঠক করেছেন। মালিকদের ডেকে পরামর্শের নামে মন্ত্রীরা ভদ্র হুঁশিয়ারি দিয়েছেন।

‘‘বেগম খালেদা জিয়া গণমাধ্যমের ওপর সরকারের এরকম হুঁশিয়ারিতে উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন।’’

বৃহস্পতিবার তথ্য মন্ত্রণালয়ে টেলিভিশন স্টেশনের মালিক ও প্রতিনিধিদের সঙ্গে দেশের সার্বিক পরিস্থিতি ও গণমাধ্যমের ভূমিকা নিয়ে প্রায় দুই ঘণ্টা বৈঠক করেন মন্ত্রিসভার পাঁচ সদস্য।

দেশের পরিস্থিতি স্বাভাবিক দাবি করে তা মানুষের সামনে তুলে ধরতে বৈঠকে টেলিভিশন চ্যানেলগুলোর ‘সহযোগিতা’ চাওয়া হয় সরকারের তরফ থেকে।

তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু, শিল্পমন্ত্রী আমির হোসেন আমু, বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ, পানিসম্পদমন্ত্রী আনিসুল ইসলাম মাহমুদ ও স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল কথা বলেন টেলিভিশন স্টেশনের মালিকদের সঙ্গে।

সন্ধ্যা ৭টার দিকে চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা ও ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের একাংশের মহাসচিব শওকত মাহমুদ গুলশানের কার্যালয়ে প্রবেশ করেন।

গত ৩ জানুয়ারি থেকে খালেদা জিয়া এই কার্যালয়ে অবস্থান করছেন। ১৫ দিন অবরুদ্ধ থাকলেও বর্তমানে সেখানে পুলিশের অতিরিক্ত পাহারা নেই। গত সোমবার গভীর রাতে পুলিশি পাহারা ও বেষ্টনী প্রত্যাহার করে নেয়া হয়।

সাক্ষাৎ শেষে বেরিয়ে এসে কার্যালয়ের বাইরে অপেক্ষমাণ সাংবাদিকদের শওকত মাহমুদ বলেন, “বেগম খালেদা জিয়া বর্তমানে সুস্থ আছেন। ঢাকা ও খুলনা বিভাগে ২০ দলীয় জোটের ডাকা ৪৮ ঘণ্টার হরতাল সফলভাবে পালনের জন্য জোটের নেতাকর্মী ও দেশবাসীকে অভিনন্দন জানিয়েছেন।

“তিনি (খালেদা জিয়া) বলেছেন, গণতন্ত্র পুনরুদ্ধারের আন্দোলনে তিনি অটল রয়েছেন। বিজয়ী না হওয়া পর্যন্ত অবরোধ কর্মসূচি চালিয়ে যেতে নেতাকর্মী ও দেশবাসীর প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন।”

অবরুদ্ধ থাকার কারণে বেগম জিয়া বাসায় যেতে পারেনি। এখন তিনি তার বাসায় ফিরে যাবেন কিনা- এরকম প্রশ্নের জবাবে শওকত মাহমুদ বলেন, ‘‘অবরোধ কর্মসূচির ঘোষণা দেশনেত্রী নিজে দিয়েছেন। এটি তার অফিস। অফিসে তার কাজ রয়েছে। অবরোধ কর্মসূচি চলাকালে তিনি এখানে অবস্থান করবেন।’’

কার্যালয়ে দলের ভাইস চেয়ারম্যান সেলিমা রহমান, চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা আবদুল কাইয়ুম, প্রেস সচিব মারুফ কামাল খান বিশেষ সহকারি শামসুর রহমান শিমুল বিশ্বাস, মাহবুব আলম ডিউ, নিরাপত্তা সমন্বয়কারী অবসরপ্রাপ্ত কর্ণেল আবদুল মজিদ ও মহিলা দলের সাধারণ সম্পাদক শিরিন সুলতানা রয়েছেন।

Shortlink:

Q&A

You must be logged in to post a comment Login