তিন সিটিতেই বিএনপির নির্বাচন বর্জন

চট্টগ্রামের পর এবার ঢাকার দুই সিটিতেও নির্বাচন বর্জন করেছে বিএনপি। ভোট কারচুপি, কেন্দ্র দখল, কেন্দ্রে প্রবেশ করতে না দেওয়া ইত্যাদি নানা অভিযোগ এনে নির্বাচন বর্জনের ঘোষণা দেওয়া হয়।
দুপুর ১২টা ২০ মিনিটে রাজধানীর নয়াপল্টনের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে উত্তরের মেয়র পদপ্রার্থী তাবিথ আউয়াল এবং দক্ষিণের মেয়র পদপ্রার্থী মির্জা আব্বাসের স্ত্রীকে পাশে নিয়ে এ ঘোষণা দেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য মওদুদ আহমেদ।
এ সময় তিনি বিভিন্ন ওয়ার্ডের উদাহরণ টেনে বলেন, এসব ওয়ার্ডে ভোটাররা প্রবেশ করতে পারেনি। টোকেন দেখে দেখে লোকজনকে ভেতরে প্রবেশ করানো হয়েছে।
এর আগে চট্টগ্রামে ব্যাপক কারচুপির অভিযোগ এনে চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন নির্বাচন বর্জনের ঘোষণা দিয়েছেন বিএনপি সমর্থিত মেয়র প্রার্থী মনজুর আলম। সেই সঙ্গে রাজনীতি থেকেও নিজের অবসর নেওয়ার ঘোষণা দিয়েছেন তিনি।
মঙ্গলবার সকাল ৮টায় চট্টগ্রামের ৭১৯টি কেন্দ্রে ভোটগ্রহণ শুরুর তিন ঘণ্টার মাথায় সকাল সোয়া ১১টায় দেওয়ানহাটে নিজের নির্বাচনী কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে এই ঘোষণা দেন চট্টগ্রাম সামাজিক উন্নয়ন আন্দোলনের প্রার্থী মনজুর।
তার প্রধান নির্বাচনী এজেন্ট বিএনপি নেতা আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী কারচুপির অভিযোগ তুলে ধরে বলেন, ”৮০ শতাংশ ভোটকেন্দ্র দখল হয়ে গেছে। আমাদের এজেন্টদের বের করে দেওয়া হচ্ছে। আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী নিশ্চুপ রয়েছে।”
মনজুর বলেন, ”যেহেতু নির্বাচন হয়েই যাচ্ছে, তাই আমি নির্বাচন বর্জন করলাম এবং নিজেকে প্রত্যাহার করে নিলাম।” গত পাঁচ বছর চট্টগ্রামের মেয়রের দায়িত্ব পালনের পর এবারও বিএনপির সমর্থনে প্রার্থী হয়েছিলেন দলের চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার এই উপদেষ্টা।

Shortlink:

Q&A

You must be logged in to post a comment Login